Breaking News

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে ব্যারিস্টার রফিক-উল হক

সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ও সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের জীবন সংকটাপন্ন। তিনি জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছেন বলে জানা গেছে। তাকে রাজধানীর মগবাজারস্থ আদ-দ্বীন হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) দিবাগত রাত ১২টার পর তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয় বলে জানান হাসপাতালটির মহাপরিচালক ডা. নাহিদ ইয়াসমিন।

বুধবার (২১ অক্টোবর) তিনি জানান, ‘স্যারের (রফিক-উল হক) অবস্থা মঙ্গলবার রাত থেকে খারাপের দিকে। এ কারণে তাকে আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছে। তার অবস্থা বর্তমানে ক্রিটিক্যাল (সংকটাপন্ন)।’

দেশের প্রতিথযশা আইনজীবী এবং আদ-দ্বীন হাসপাতালের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার রফিক-উল হক অসুস্থ হয়ে পড়লে গত ১৫ অক্টোবর সন্ধ্যায় তাকে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর তিনি কিছুটা সুস্থ বোধ করলে গত ১৭ অক্টোবর সকালে পল্টনের বাসায় ফিরে যান। তবে ওইদিনই দুপুরের পর পরই তাকে আবার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর গত ১৯ অক্টোবর তার করোনা পরীক্ষা করা হয়। করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসলেও তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে।

এর আগে গত জুনে ডায়াবেটিস কমে যাওয়ায় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয় এবং তখনও তাকে আদ-দ্বীন হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণে নেয় হয়। পরে তিনি পল্টনের বাসায় অবস্থান করেই চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠেন।

প্রখ্যাত আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক ১৯৩৫ সালের ২ নভেম্বর কলকাতার সুবর্ণপুর গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। তিনি ১৯৯০ সালের ৭ এপ্রিল থেকে একই বছরের ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল ছিলেন। তিনি ছিলেন রাষ্ট্রের ষষ্ঠ অ্যাটর্নি জেনারেল।

দেশের দুই নেত্রীর আইনজীবী খ্যাত এই ব্যক্তিত্ব ২০১৭ সালে বাম পায়ের হাটুতে অস্ত্রপচার করান। মূলত এরপর থেকেই চলাফেরা সীমিত হয়ে পড়ে। স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে না পারায় ৮৫ বছর বয়স্ক খ্যাতিমান এই মানুষটির দিনের অধিকাংশ সময় কাটে বিছানায় শুয়েই। চলাফেরা করতে হলে হুইল চেয়ার আর ব্যক্তিগত কর্মচারীরাই তার সাথী।